করোনা পরিস্থিতিতে রাষ্ট্র আগের থেকে অনেক বেশি ক্ষমতাবান

করোনাভাইরাস রাষ্ট্র ব্যবস্থা, কাঠামো ও কূটনৈতিক সম্পর্কে প্রভাব ফেলছে এবং এর ফলে রাষ্ট্র আগের থেকে অনেক বেশি ক্ষমতাবান হচ্ছে বলে মনে করেন নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির সিনিয়র ফেলো ও সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মোহাম্মাদ শহীদুল হক। বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির উদ্যোগে আয়োজিত কোভিড-১৯ এবং এর প্রভাব শীর্ষক এক ভার্চুয়াল সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

প্রফেসর জসিমউদ্দিনের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরও আলোচনা করেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর আতিকুল ইসলাম, সিপিডির বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান, সাবেক খাদ্য সচিব আনোয়ার ফারুক, বিশ্ববিদ্যালয়ের পাবলিক হেলথ বিভাগের অধ্যাপক আহমেদ হোসেনসহ অন্যরা।
সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মোহাম্মাদ শহীদুল হক বলেন, ‘রাষ্ট্রের ক্ষমতা এবং নিয়ন্ত্রণ আগের থেকে বেশি হবে। সাধারণ নিরাপত্তা ও মানুষের নিরাপত্তার সংজ্ঞা পরিবর্তন হবে, বৈশ্বিক রাজনীতি ও ক্ষমতার দ্বন্দ্ব পরিবর্তন হবে এবং বৈশ্বিক বাজার ও ব্যবসা পরিবর্তন হবে।’

বহুপক্ষীয় ব্যবস্থা ও মানবতা এখন চ্যালেঞ্জের মুখে জানিয়ে শহীদুল বলেন, ‘ক্ষমতার ভারসাম্য পরিবর্তিত হয়ে পশ্চিম থেকে পূর্ব ভাগে চলে আসছে। এর ফলে মাল্টিপোলার বিশ্ব ব্যবস্থা তৈরি হবে।’

বর্তমান যে লিবার‌্যাল বিশ্ব ব্যবস্থা আছে সেটি ভেঙে গেছে। বহুপক্ষীয় ব্যবস্থা ও আন্তর্জাতিক আইন এখন হুমকির মুখে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বহুপক্ষীয় ব্যবস্থা ও আন্তর্জাতিক আইন, যার ওপর আমাদের রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত সেটি এখন কম সম্মান পায় এবং কষ্টের মধ্যে আছে।’

এর ফলে নতুন ধরনের বিশ্ব সংস্থা গুরুত্ব পাচ্ছে, যেমন- ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম বলে তিনি জানান।

তিনি আরও বলেন, ‘যখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হোঁচট খাচ্ছে বা জাতিসংঘকে সমালোচনা করা হচ্ছে, তখন ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম নীতিগত বিষয়ে এখন বৈশ্বিক সমষ্টিগত ভয়েস হিসেবে কাজ করছে।’

কূটনীতিতে সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হচ্ছে আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স যন্ত্রপাতির ব্যবহার জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ক্রিটিক্যাল স্ট্র্যাটেজিক চিন্তা বজায় রাখতে হবে এবং ভূ-রাজনীতিতে যে ক্রমাগত পরিবর্তন হচ্ছে সেটির প্রতি নজর রাখতে হবে।’
বিশ্বাসযোগ্য ভারসাম্য বজায় রাখার ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, ‘এই সময়টা খুবই চ্যালেঞ্জিং। এ মুহূর্তে বৈশ্বিক বড় শক্তিগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ রাখার পাশাপাশি বড় যে উদ্যোগ ও ফোরাম আছে সেখানেও মনোযোগী হতে হবে।’

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামে প্রধানমন্ত্রী মানুষের মঙ্গলের জন্য নতুনভাবে চিন্তা করাসহ যে পাঁচ দফা প্রস্তাবনা দিয়েছেন, তার ওপর ভিত্তি করে পরিবর্তিত পররাষ্ট্রনীতির ওপর জোর দেন তিনি।

আলোচনায় সিপিডির মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বর্তমান অবস্থায় সুশাসন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, সীমিত সম্পদের সর্ব্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে এর বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে সরকারের আয় কমার পাশাপাশি খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এক্ষেত্রে সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারের জন্য দরকার সুশাসন।’

ভোগ ও আয়ের ক্ষেত্রে অসমতা বৃদ্ধি পাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বাজেটের প্রাক্কলন বাস্তবসম্মত করা দরকার।’

৫০ লাখ দরিদ্র মানুষকে সরকারের নগদ সহায়তার উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, এর পরিধি দুই কোটি মানুষে করতে হবে।
নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পাবলিক হেলথ বিভাগের অধ্যাপক আহমেদ হোসেন বলেন, গত ১০৩ দিনে বাংলাদেশে প্রায় এক লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এবং মারা গেছে প্রায় ১,৩০০ জন। তিনি বলেন, মৃত্যু বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, ৫০ বছরের ঊর্ধ্বে পুরুষরা এবং নারীদের ক্ষেত্রে ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে যারা তারা বেশি ঝুঁকিতে রয়েছেন।

লকডাউন কোনও সমাধান না জানিয়ে যারা বেশি ঝুঁকির মধ্যে নেই অর্থাৎ ৫০ বছরের নিচে, তাদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করার কথা বলেন আহমেদ হোসেন।
banglatribune

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *