শ্রীমঙ্গলে তিন গম্বুজ গায়েবি ম’সজিদ!

হযরত শাহ’জালাল (র.) ও হযরত শাহপরান (র.) পূণ্যস্মৃ’তি বিজরিত সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জে’লার শ্রীমঙ্গল উপজে’লার ৬নং আশিদ্রোন ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের জিলাদপুর গ্রাম।

এ গ্রামে অবস্থিত হাজার বছরের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী তিন গম্বুজ বিশিষ্ট গায়েবি ম’সজিদ। এলাকাবাসীর দাবি ১০০০ খ্রীষ্টাব্দে আশীদ্রোন ইউনিয়নের পশ্চিম আশিদ্রোন জিলাদপুর গ্রামে বিলাস নদীর তীরে বিশাল জায়গা জুড়ে এলাকাবাসী একটি ম’সজিদ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

যথারীতি ম’সজিদের জন্য জমি নির্ধারণ করত ম’সজিদটির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ পরিমাপ করা হয়। যেদিন মাপ-যোগ করে ঈশান দেওয়া হয় সেদিন আর কোন কাজ করা হয়নি। পরদিন সকালে শ্রমিকরা কাজে এসে দেখেন মাপ অনুযায়ী অনিন্দ সুন্দর চুন-সুরকির একটি ম’সজিদ গায়েবীভাবে এক রাতের মধ্যে নির্মাণ করা হয়েছে। সে সময় থেকেই স্থানীয় লোকজনের ধারণা রাতের মধ্যে জিনেরা এ ম’সজিদ তৈরি করে দিয়েছেন। এরপর থেকে আজোবদি জিলাদপুর তিন গম্বুজ বিশিষ্ট ম’সজিদটি গায়েবী ম’সজিদ নামে পুরো এলাকায় পরিচিত।

ম’সজিদটিতে গিয়ে দেখা যায়, পুরো ম’সজিদটির কা’টামোতে কোন ধরণের রড বা ইট-সিমেন্ট ব্যবহার করা হয়নি। ম’সজিদটি নির্মাণে ব্যবহৃত হয়েছে চুন-সুরকি। মোগল স্থাপত্য রীতিতে তৈরিকৃত এ ম’সজিদটিতে রয়েছে তিনটি গম্বুজ। প্রায় তিন একর জমি নিয়ে বেষ্টিত এ ম’সজিদটিতে একসাথে দেড় শতাধিক মু’সল্লি নামাজ আদায় করতে পারেন।
প্রাচীন এ ম’সজিদটিতে দফায়-দফায় সংস্কার কাজ করা হয়েছে। নির্মাণকালে ম’সজিদটিতে কোন বারান্দা ছিলো না। এলাকাবাসী ম’সজিদটিতে বারান্দা নির্মাণ করেছেন। ম’সজিদটির দেয়ালে দেয়া হয়েছে রঙের প্রলেপ। সংস্কার করা হয়েছে ম’সজিদটির শৌচাগার ও ওজুখানা।

শ্রীমঙ্গল উপজে’লার ৬নং আশীদ্রোন ইউনিয়নের জিলাদপুর গ্রামে অবস্থিত ঐতিহাসিক ও প্রাচীন তিন গম্বুজ বিশিষ্ট গায়েবি ম’সজিদটি দেখতে প্রায় প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে শত-শত মানুষ আসেন। এখানে নামাজের ওয়াক্তে এটি দেখতে আসা মানুষ নামাজ আদায় করেন। শুধুমাত্র মু’সলিম ধ’র্মাবলম্বীরাই নয়, এটি দেখতে আসেন অন্যান্য ধ’র্মাবলম্বীরা।

দৈনিক জালালাবাদ

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *