মোবাইল ফোনের চার্জার বিস্ফোরণ, একই পরিবারের চার জনের মৃ’ত্যু

চট্টগ্রাম নগরীতে এক সপ্তাহ আগে দ’গ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) স্বামী-স্ত্রী’ ও মে’য়ের মৃ’ত্যু হয়েছে। বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে মোবাইল চার্জার বিষ্ফোরণে দ’গ্ধ হয়ে ওই সময় মা’রা যায় তাদের ছে’লে। এদের মৃ’ত্যুর মধ্য দিয়ে পরিবারটির আর কেউ বেঁচে থাকল না।

১৮ অক্টোবর চট্টগ্রাম নগরীর ডবলুমুরিং থা’নার মোল্লাপাড়ায় নিরিবিলি আবাসিক এলাকার আলী ভূঁইয়া বাড়ি নামে একটি দোতলা ভবনের নিচ তলায় মাছ ব্যবসায়ী আমির হোসেনের বাসায় এ ঘটনা ঘটেছিল।

দ’গ্ধ হয়ে মৃ’ত্যুর শিকার চারজন হলেন- আমির হোসেন (৩২), তার স্ত্রী’ খালেদা আক্তার (২৫) ও আনিকা (৮) এবং আশরাফুল (৫)। এদের মধ্যে আশরাফুল ঘটনার দিনই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যায়।

মৃ’ত আমির হোসেনের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জে’লার নবীনগর উপজে’লার জালশুকা গ্রামে। গত ১৫ অক্টোবর আমির ভাড়া বাসাটিতে পরিবার নিয়ে উঠেছিলেন।

ডবলমুরিং থা’নার পরিদর্শক (ত’দন্ত) জহির হোসেন জানান, আশরাফুলের মৃ’ত্যুর পর দ’গ্ধ তিনজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার দুপুরে আমির ও সন্ধ্যায় আনিকা মা’রা যায়। বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) ভোরে মা’রা যান আমিরের স্ত্রী’ খালেদা।পু’লিশ পরিদর্শক জহির বলেন, ‘১৮ অক্টোবর রাতে খালেদা মোবাইলের চার্জার লাগানোর সময় শর্টসার্কিট হয়ে চার্জারটি বিষ্ফোরিত হলে তার চুলে আ’গুন লাগে।

এ সময় ছে’লে আশরাফুল মাকে বাঁ’চাতে গেলে সেও দ’গ্ধ হয়। একইভাবে আমির ও তার মে’য়েও বাঁ’চাতে গিয়ে অ’গ্নি দ’গ্ধ হয়। পরে প্রতিবেশীরা তাদের হাসপাতালে নিয়ে যান।’তিনজনের ম’রদেহ স্বজনেরা গ্রামের বাড়িতে দাফনের জন্য নিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন এই পু’লিশ কর্মক’র্তা।

সুরমা নিউজ

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *