বিশ্বের প্রথম মুসলিম দেশের ‘মঙ্গল গ্রহে যাত্রা’

দীর্ঘ দিনের ক্ষণ গণনা শেষে গত বুধবার সকালে মঙ্গল গ্রহের উদ্দেশে রওনা হওয়ার কথা ছিলো সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রথম নভোযান। কিন্তু বাধ সাধল খারাপ আবহাওয়া। তাই আপাতত থেমে গেল মুসলিম বিশ্বের প্রথম কোনো দেশের মঙ্গল অভিযান।

জাপানের তেনেগাশিমার স্পেস সেন্টারে খারাপ আবহাওয়ার কারণে

‘হোপ প্রোব’ নামের নভোযানটির উড্ডয়ন স্থগিত করা হয় বলে জানিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষ। উড্ডয়নের পরবর্তী তারিখ ঠিক করা হয়েছে আগামি শুক্রবার রাতে।

দেশটির সরকারের টুইটারে বলা হয়েছে, ‘আবহাওয়ার কারণে ইউএই স্পেস এজেন্সি ও মোহাম্মদ বিন রশিদ স্পেস সেন্টার জাপানের মিতসুবিশি হেভি ইন্ডাস্ট্রিজের সঙ্গে মিলে আমিরাতের মঙ্গল মিশন ‘হোপ প্রোব’ উড্ডয়ন দেরির ঘোষণা দিয়েছে।’

জাপানের তানেগাশিমা স্পেস সেন্টার থেকে বুধবার স্থানীয় ভোর ৫টা ৫১ মিনিটে নভোযানটি উড্ডয়নের সময় ঠিক করা হয়েছিল। বলা হয়েছিল উড্ডয়নের পর আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে এটি মঙ্গলের কক্ষপথে পৌঁছাবে।

এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ও ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথে সফল মিশন সম্পন্ন করতে পেরেছে। আরব আমিরাত সফল হলে এই তালিকায় নাম লেখানো প্রথম মুসলিম দেশ হবে তারা।

হোপ প্রবের উদ্দেশ্য মঙ্গল গ্রহের আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতির বিস্তারিত ছবি পাঠানো এবং বৈজ্ঞানিক উদ্ভাবনের পথ বের করা। এই অভিযানকে আগামী ১০০ বছরের মধ্যে মঙ্গল গ্রহে মানববসতি স্থাপনে যে লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে, সেই বিশাল লক্ষ্যের সূচনা হিসেবে দেখা হচ্ছে।

মঙ্গলের শহর কেমন হতে পারে, তা নিয়ে কাল্পনিক কাঠামো তৈরিতে স্থপতিদের ভাড়া করেছে আমিরাত। স্থপতিরা এর মরুভূমিতে নির্মিতব্য ‘সায়েন্স সিটির’ নকশাও তৈরি করবেন। দুবাই এ জন্য প্রায় ৫০ কোটি দিরহাম ব্যয় করেছে।

somoynews

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *