বেনাপোল কাস্টমসের ল’কার ভে’ঙে ২০ কেজি সো’না চু’রি

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের ল’কার ভে’ঙে ২০ কেজি সোনা চু’রি হয়েছে। শুক্র-রবিবার তিন দিনের সরকারি ছুটির সময় এই ঘটনা ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সোমবার (১১ নভেম্বর) বিকালে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের সহকারী কমিশনার উত্তম চাকমা জানান, যারা এ চু’রির ঘটনা ঘটিয়েছে, তাদের আগে থেকেই পরিকল্পনা ছিল। ঠিকভাবে তদন্তের মাধ্যমে যেন চু’রির ঘটনার রহস্য উন্মোচন হয়, তার জন্য সিআইডিকে জানানো হয়েছে। তদন্ত শেষে কি কি চু’রি হয়েছে, তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে।

যশোর জেলা পু’লিশের অতিরিক্ত পু’লিশ সুপার তোহিদুল ইসলাম জানান, এই ঘটনায় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ মা’মলা করেছে। আমরা তদন্ত শুরু করেছি।

জানা গেছে, লকারে থাকা ৩০ কেজি সোনার মধ্যে ১৯.৩৮ কেজি সোনা চু’রি হয়েছে। গোডাউনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা না’জুক ছিল এবং গোডাউনের নিরা’পত্তায় থাকা কারও সহযোগিতায় এই ঘটনা ঘটেছে বলে সংশ্লিষ্টদের ধারণা। এছাড়া ছুটির তিন দিন সিসি টিভি ক্যামেরা বন্ধ ছিল।

এদিকে বিষয়টির তদন্ত করতে কাস্টমস কর্তৃপক্ষও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।
গোডাউনের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বেনাপোল থা’না পু’লিশ আ’টক করেছে।

কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, কাস্টমস হাউজের পুরাতন ভবনের দ্বিতীয় তলায় গোপ’নীয় ল’কারের কক্ষে ঢুকে সংঘ’বদ্ধ চো’র চ’ক্র সিসি ক্যামেরার তার কেটে দেয়। এরপর চু’রির ঘটনা ঘটায়। ওই ল’কারে কাস্টমস, কাস্টমস শুল্ক গো’য়েন্দা, বিজিবি ও পুলিশের উদ্ধার করা সোনা, ডলার, বৈদেশিক মুদ্রাসহ মূল্যবান দলিল ছিল। ঘটনাস্থলে পু’লিশি পাহারা বসানো হয়েছে। ওই ভবনটিতে আ’নসার সদস্যরা নিরাপত্তা রক্ষার কাজটি করে থাকেন।

banglatribune

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *