আম খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে শিশুকে ‘ধ’র্ষণ’

কিশোরগঞ্জের ভৈরবের লক্ষ্মীপুর এলাকায় আবারো ৮ বছরের এক শিশুকে ধ’র্ষ’ণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় দুর্জয় নামের একই এলাকার এক কিশোরের বি’রুদ্ধে ভৈরব থানায় না’রী ও শিশু নি’র্যাত’ন দ’মন আইনে মা’মলা হয়েছে।

অভিযোগ পাত্তয়ার পর ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিনের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত কিশোরকে গ্রে’ফতার করা হয়।

সে লক্ষ্মীপুর গ্রামের হেলিম সরকারের ছেলে।

প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা পাত্তয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন।

মঙ্গলবার (৯ জুন) দুপুরে আসামিকে জেল হাজতে এবং ধ’র্ষিতা’কে ২২ ধারায় জবানবন্দী রেকর্ড করার জন্য জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রেরণ করা হয়।

ধ’র্ষিতা’র মা জানান, গত তিন মাস আগে হবিগঞ্জের কামালপুর থেকে ভৈরবের জগন্নাথপুর এলাকার লক্ষ্মীপুরের সুলাইমান মিয়ার ভাড়া বাসায় উঠেন তারা। একই এলাকার আনোয়ার মিয়ার কয়েল কারখানায় কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছিলেন। গত ৬ জুন আনুমানিক বেলা ১২.৩০ মিনিটের দিকে প্রতিদিনের মত কারখানায় কাজ করছিলাম।

এ ফাঁকে আমার মেয়েকে আম খাত্তয়ানোর কথা বলে আসামি দুর্জয় বাসায় ডেকে নিয়ে ধ’র্ষ’ণ করে। ভয় দেখায় যে কাউকে এ কথা জানালে তাকে মেরে ফেলবে। রাতের বেলায় তার পে’ট ব্য’থা ও প্র’শ্রা’বে য’ন্ত্রনা শুরু হলে বিষয়টি জানাজানি হয়। পরের দিন বিষয়টি ছেলের মাকে জানানো হলে সে উল্টো তাদের বকাঝকা করে তাড়িয়ে দেয়। নিরুপায় হয়ে আজ থানাকে বিষয়টি জানানো হলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত দুর্জয়কে গ্রে’ফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদে সে ধ’র্ষ’ণের কথা স্বীকার করে বলে পুলিশ জানায়। এ ব্যাপারে ভৈরব থানায় শিশুর মা নারী ও নির্যাতন দমন আইনে দুর্জয়কে আসামি করে ভৈরব থানার মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ আসামিকে জেল হাজতে এবং ভিকটিমকে ২২ ধারায় জবানবন্দী রেকর্ডের জন্য জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে পাঠানো হয়।

ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন বলেন আমি অভিযোগ পাত্তয়ার সাথে সাথে অভিযান চালিয়ে অভি’যুক্ত’কে গ্রে’ফতার করে আইনের আত্ততায় নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাত্তয়া যায় বলে তিনি জানান।
somoynews

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *