চীনে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় অযুর ন্যায় হাত,মুখ ও নাক ধোঁয়ার নির্দেশনা ডাক্তারের

করোনাভাইরাস ইতিমধ্যে চীন থেকে উৎপত্তি হয়ে সারাবিশ্বে মা’রাত্মক আকার ধারন করেছে। চীনে করোনাভাইরাসে ইতিমধ্যে মা’রাগেছে ৫৬৩ এবং আ’ক্রান্ত হয়েছেন ২০০২৮ জন। পুরো চীন যেন এক মৃ’ত্যু পুরিতে পরিণত হয়েছে।

করোনার লাগাম যেন টানায় যাচ্ছে না কোনভাবে। পুরোপুরি অবরু’দ্ধ রাখা হয়েছে করে দেওয়া হয়েছে চীনের উহান ও হুবেই শহর।চীনা চিকিৎসকরাও দিনরাত নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। এখনো পর্যন্ত কোন প্রতিশেধক তৈরি হয়নি। তবে দিনরাত গবেষনায় ব্যয় করছেন গবেষকরা ।

ইতিমধ্যে চীনা ডাক্তাররা এই ভাইরাসের বিস্তার যেন না ঘটি সেদিক উল্লেখ করে হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ের জনস্বাস্থ্যের চেয়ারম্যান গ্যাব্রিয়েল লেইং তার দলের গবেষণার বিষয়ে একটি প্রেস ব্রিফিং দিয়েছেন, তারা চীনের নাগরিকদের জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন তারা যেন প্রত্যেকদিন ৪/৫ বার মুখ, হাত ধৌত করে ও নাকি পানি দেয়। এছাড়া চীনে মাস্ক ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

বেলজিয়ামের প্রবীণ নারী নাগরিক জর্জেট লেপলের বয়স ৯২ বছর। ইসলামের সৌন্দর্য দেখে প্রতিবেশির অনুপ্রেরণায় তিনি ৯২ বছর বয়সে পবিত্র ধর্ম ইসলাম গ্রহণ করেছেন। প্রবীণ নারী জর্জেট লেপল-এর শেষ ৫০ বছরের প্রতিবেশি মুহাম্মাদ ও তার পরিবার।

জর্জেট লেপলের মেয়ে ছাড়া পরিবারের কোনো সদস্য জীবিত না থাকার কারণে তিনি মুহাম্মাদের স্ত্রী ও তার পরিবারের সঙ্গে বসবাস শুরু করেন। মুহাম্মাদ ও তার স্ত্রীর এক ছেলে ও ২ মেয়ের ছোট্ট পরিবারের সঙ্গী।

জর্জেট লেপল মুহাম্মাদের পরিবারের সঙ্গে থাকাকালীন সময়ে কাছ থেকে দেখেন তাদের প্রার্থনা ও ইসলামে রীতিনীতি। এগুলোই তাকে ইসলাম গ্রহণে অনুপ্রাণিত করে তোলে। জর্জেট লেপল লক্ষ্য করেন, মুসলিম পরিবারের সদস্যরা একে অপরের সঙ্গে কীভাবে কথা বলে, তার খোঁজ-খবর কীভাবে রাখে।

তাদের পারস্পরিক সহযোগিতা, সেবা-যত্ন ও প্রার্থনা দেখে তার খুবই ভালো লেগেছিল। জর্জেট পেপল বলেন, ‘তার নিজের মেয়ে রয়েছে কিন্তু সে মেয়ে তাকে ডাকে না, তার খোঁজ-খবরও রাখে না। অথচ মুহাম্মাদের পরিবার তার সঙ্গে সুন্দর আচরণ করে এবং সার্বক্ষণিক যত্ন নেয়। তাদের এ সদ্ব্যহার তাকে ইসলামের প্রতি আকৃষ্ট করে তোলে।

গত রমজান মাসে জর্জেট পেপল এই মুসলিম পরিবারের সঙ্গেই মরক্কো ভ্রমণ করেন। সেখানে তিনি অনেক লোকের এক সঙ্গে রোজা পালন করতে দেখেন এবং একে অপরের যত্ন ও মেহমানদারি করতে দেখেন।

মরক্কো থাকাকালে তিনি এ চিন্তা করে হতবাক হয়ে যান যে, জীবনের শেষ সময়ে এসে তিনি ইসলামের সৌন্দর্য দেখতে পেলেন। তবে জর্জেট পেপল জীবনের শেষ সময়ে এসে ইসলামের সন্ধান পেয়েও আল্লাহর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

তিনি মুহাম্মাদের পরিবারের সঙ্গে মরক্কো থেকে ব্রাসেলসে ফিরে আসেন। তিনি ব্রাসেলস মসজিদে এসে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং নিজের নাম পরিবর্তন করে রাখেন ‘নূর ইসলাম’।
bartabahok

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *